গবেষকরা তৈরি করছেন উড়ন্ত কার্পেট !

আকাশে উড়ে বেড়াতে কার না ইচ্ছে হয় আবার তা যদি হয় পুরাকালের রাজা বাদশা কিংবা মিনা কার্টুনের মিনা রাজুর মত উড়ন্ত কার্পেট এ চড়ে তাহলে তো কথায় নেই। তবে এতদিন ধরে মানুষজন এমনকি বিজ্ঞানীরাও এই ব্যাপারে তেমন একটা চিন্তা ভাবনা করে নি যে, মানুষের পক্ষে সত্যি সত্যি এভাবে মাদুর এ করে আকাশে উড়ে বেড়ানো সম্ভব। যা হোক, আশার কথা হল, এল মহাদেবান নামক এক গবেষকই সম্ভবত প্রথমবারের মত এই বিষয়ে বিস্তর এবং গুরুত্ব নিয়ে কাজ করা শুরু করেন। তিনি প্রাথমিকভাবে প্লাস্টিকের কাপড় বা পর্দা- এর উড্ডয়ন- বিচরণ সম্ভাবনা নিয়ে কাজ করেন । সহজ কথায় উড়ন্ত কার্পেটের ধারনাকে বাস্তবে পরিনত করার জন্য তিনি প্রচেষ্টা চালান। কিছুদিন পর তাঁর সাথে যোগ দেয় তারই এক উদ্যমী গ্র্যাজুয়েট ছাত্র। এবং কিছুদিন হল বিজ্ঞানীরা তাদের গবেষণার উপর ভিত্তি করে প্রথমবারের মত বিদ্যুৎ চালিত একটি কার্পেট তৈরি করেন যা বাতাসে স্ব-নিয়ন্ত্রিত ভাবেই উড়ে বেড়ায়।

 

২০০৭ সালে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতবিদ মহাদেবান তাঁর গবেষণাকে একটি প্রস্তাবনা আকারে উপস্থাপন করেন । যা ছিল মূলত একটি পাতলা নমনীয় কার্পেটকে ভূ- পৃষ্টের উপর  উড্ডয়ন উপযোগী করে তৈরি করা। তাঁর গবেষণায় বলা হয় যে-, একটি পাতলা কার্পেট যদি তরঙ্গাকারে দ্রুত স্পন্দিত হয় , অনেকটা -much like a ray swimming near the seafloor তাহলে তা উপরে- শুন্যে ভেসে থাকবে। মহাডেবান তাঁর প্ল্যান অনুযায়ী উড়ন্ত কার্পেট তৈরি করতে পারেন নি। তিনি অতপর- মনযোগী হয়ে যান আর্দ্র- সিক্ত কাগজের বক্রতা এবং লিলি ফুল ফোঁটার কারন সংক্রান্ত গবেষণা নিয়ে। কিন্তু- ২০০৮ সালে প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের Noah Jafferis ছাত্র মহাদেভানের রিসার্স পেপারের সংস্পর্শে আসেন এবং এ ব্যপারে আরও কার্যকর পদক্ষেপ নেন। জাফেরিস যা তৈরি করেছিল তা একেবারে বাস্তবসম্মত- উড়ন্ত কার্পেট ছিল না। তবুও তার তৈরি করা ৪ঃ ১.৫ ইঞ্চির প্লাস্টিকের যানটিই ছিল আকাশে উড়ে বেড়ানোর মত প্রথম কোন কার্পেট বা জাদুর পাটি।

 

Source: http://discovermagazine.com